চালের বস্তায় ভারতীয় নাম ব্যবহার করে দেশি চাল বিক্রি!

0

তরিকুল ইসলাম, ঝিকরগাছা (যশোর)॥ আমদানি ও উৎপাদন নিষিদ্ধ প্লাস্টিক-পলিথিনে ঝিকরগাছা বাজার সয়লাব হয়ে পড়েছে। এখানে বিভিন্ন অটো রাইসমিলের চাল ব্যবসায়ীরা এলসির মাধ্যমে ভারতীয় চাল আমদানি করছেন। এর সুযোগ নিচ্ছে স্থানীয় অটোরাইস মিলাররা। অভিযোগ উঠেছে, তারা ভারতীয় চালের ব্র্যান্ড ’নুরজাহান’ লোগো দেশেয় উৎপাদিত প্লাস্টিক বস্তায় ব্যবহার করছেন দেদারসে। উপজেলাব্যাপী বিভিন্ন হাটবাজারে খাদ্যপণ্যে ব্যবহার হচ্ছে উৎপাদন ও আমদানি নিষিদ্ধ পলিথিনের শপিং ব্যাগ ও রংবেরঙয়ের বাহারি মোড়ক। এসব যেন দেখার কেউ নেই। অভিযোগ উঠেছে, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্তাব্যক্তিরা এব্যাপারে নির্বিকার-নির্লিপ্ত। গুরুতর অভিযোগ এই যে, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠা অটোরাইস মিলের কতিপয় অসাধু মুনাফালোভী ব্যবসায়ী। সীমান্তবর্তী শার্শা ও ঝিকরগাছা উপজেলায় গড়ে উঠা অটোরাইস মিলে দেশি বিভিন্ন মোটা চাল প্রসেস করা হচ্ছে। যা পরবর্তীতে ভারতীয় চিকন চালের জনপ্রিয় ব্রান্ড ’নুরজাহান’ লোগো ব্যবহার করে ২৫ ও ৫০ কেজির বস্তা বাজারজাত করা হচ্ছে। এতে ক্রেতা-ভোক্তারা প্রতারিত হচ্ছেন।
ভোক্তা-অধিকার বিরোধী কার্য ও অপরাধের ৪৩ ধারায় বলা হয়েছে অবৈধ প্রক্রিয়ায় পণ্য উৎপাদন বা প্রক্রিয়াকরণ হলে ২ বছরের কারাদন্ডসহ একলাখ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। এছাড়া ৪৪ধারায় বলা আছে মিথ্যা বিজ্ঞাপন দ্বারা ক্রেতা সাধারণকে প্রতারিত করা হলে এক বছরের সাজাসহ ২লাখ টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর যশোরের সহকারী পরিচালক ওয়ালিদ বিন হাবিব বলেন, বিষয়টি ইতিমধ্যে তিনি অবগত হয়েছেন। দ্রুত অভিযান পরিচালনা করে দায়িদের চিহ্নিতপূর্বক কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

Lab Scan