চারজনের নামে মামলা,আটক ২ মনিরামপুরে যুবলীগ নেতা উদয় হত্যার নেপথ্যে বিদ্যালয় কমিটি ও নিয়োগ

0

 

স্টাফ রিপোর্টার,মনিরামপুর(যশোর)॥ যশোরের মনিরামপুরে গুলি করে নেহালপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি প্রভাষক উদয় শংকর বিশ^াসকে হত্যার ঘটনায় আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা পবিত্র বিশ্বাসসহ চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। নিহতের মা ছবি রানী বিশ্বাস বাদি হয়ে সোমবার রাতে মনিরামপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। ওই রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার আসামি পরিতোষ বিশ্বাস ও উত্তম বিশ্বাসকে আটক করে। মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে তাদেরকে আদালতে চালান দিয়েছে। এদিকে দোষীদের শাস্তির দাবিতে টেকারঘাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।
মামলার বাদি ছবি রানী বিশ্বাস জানান, তার ছেলে নেহালপুর স্কুল এন্ড কলেজের সংস্কৃতি বিভাগের প্রভাষক উদয় শংকর বিশ্বাস ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তিনি টেকারঘাট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন। বিদ্যালয়ের কমিটি গঠন ও তিনজন কর্মচারী নিয়োগ দেয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী মৃত হরেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের ছেলে নেহালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক ঘের ব্যবসায়ী পবিত্র বিশ্বাসের সাথে উদয়ের চরম বিরোধ বাধে। ওই বিরোধের জের হিসেবে পবিত্র ও তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা প্রায়ই উদয় শংকরকে জীবননাশের হুমকি দিতেন।
ছবি রানী অভিযোগ করেন, বিরোধের জের হিসেবে পবিত্র বিশ্বাস এলাকার চরমপন্থি সংগঠনের সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে সোমবার সকাল সাতটার দিকে বাড়ির সামনে উদয় শংকরকে গুলি করে হত্যা করেন।
এ ঘটনায় মা ছবি রানী বাদি হয়ে পবিত্র বিশ্বাস, পরিতোষ বিশ্বাস, উত্তম বিশ্বাস, সুভাস বিশ্বাসের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নেহালপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আবদুল হান্নান জানান, ইতোমধ্যে মামলার আসামি পরিতোষ বিশ্বাস ও উত্তম বিশ্বাসকে আটক করা হয়েেেছ। মঙ্গলবার দুপুরে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে তাদেরকে আদালতে চালান দেয়া হয়েছে।
মনিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মনিরুজ্জামান জানান, রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদে তাদের কাছ থেকে হত্যাকান্ডের মূল রহস্য উদঘাটিত হবে। এছাড়াও বাকি আসামিদের আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন , কর্মচারী নিয়োগ ও এলাকায় অধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।
নেহালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিন জানান, উদয় শংকর হত্যাকান্ডের প্রধান আসামি ভূমিদস্যু পবিত্র বিশ্বাস ইতোপূর্বে এলাকায় সরকারি জমি থেকে বেশ কয়েকজন ছিন্নমূল মানুষকে উচ্ছেদ করে তা দখলে নেয়ায় তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।
এদিকে পবিত্র বিশ্বাসসহ সকল দোষীর গ্রেফতারপূর্বক শাস্তির দাবিতে টেকারঘাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

 

 

Lab Scan