খুলনায় সোনা ছিনতাইয়ের ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্যসহ পাচারকারী গ্রেফতার

0

খুলনা ব্যুরো ॥ ভারতে পাচারকারীর কাছ থেকে সোনা ছিনতাইয়ের ঘটনায় খুলনায় তিন পুলিশ সদস্যসহ পাচারকারীকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। গত শুক্রবার রাতে খুলনা মেট্রেপলিটন পুলিশের (কেএমপি) লবণচরা থানার পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে। শনিবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লবণচরা থানার ওসি হাফিজুর রহমান।
গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন- খুলনার খালিশপুর এলাকার সোনা পাচারকারী বাসুদেব দে, লবণচরা থানার এসআই মোস্তফা জামান, এএসআই আহসান হাবীব ও কনস্টেবল মুরাদ হোসেন। তারা তিনজনই লবণচরা থানায় কর্মরত ছিলেন। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে লবণচরা থানায় এসআই মোকলুসুর রহমান বাদী হয়ে চোরাচালান ও দস্যুতার অভিযোগে একটি মামলা করেছেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বাসুদেব দে একজন পেশাদার সোনা পাচারকারী। শুক্রবার দুপুরে তিনি ছয়টি সোনার বার ভারতে পাচারের জন্য টুঙ্গীপাড়া পরিবহনে সাতক্ষীরায় যাচ্ছিলেন। ওই পরিবহন বাসটি খুলনার সাচিবুনিয়া মোড়ে থামিয়ে তল্লাশি চালায় অভিযুক্ত তিন পুলিশ সদস্য। এক পর্যায়ে বাস থেকে বাসুদেব দে নেমে পালিয়ে যেতে চেষ্টা করেন। তখন তিন পুলিশ তাকে আটক করে ছয়টি সোনার বারের মধ্যে তিনটি ছিনিয়ে নেন। বাকি তিনটি তাকে দিয়ে দেন এবং মোটরসাইকেলে তাকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে ছেড়ে দেন। ছিনতাই করা তিনটি সোনার বারের মূল্য প্রায় ৩০ লাখ টাকা।
মামলার এজাহার সূত্রে আরও জানা যায়, পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন বাসুদেব দে । শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই তিন পুলিশ সদস্যকে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তখন অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেওয়া হয়।
লবণচরা থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, সোনা পাচারকারীকে বিশেষ ক্ষমতা আইনে ও অভিযুক্ত তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৩৯২ ধারায় মামলার পর গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। শনিবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃত পুলিশ সদস্যদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আর বাকি ৩টি সোনার বার উদ্ধারের জন্য পাচারকারী বাসুদেব দেকে জিঞ্জসাবাদের জন্য আদালতে ৫দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে।

 

 

Lab Scan