খুলনার জনসভায় যাওয়ার পথে মনিরামপুরে আ.লীগের দু গ্রুপে সংঘর্ষ, আহত ১০

0

স্টাফ রিপোর্টার,মনিরামপুর (যশোর) ॥ খুলনায় প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যোগদানের উদ্দেশে রওনা হওয়ার পথে সোমবার মনিরামপুরে আওয়ামী লীগের দু গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় অন্তত ১০ জন নেতা-কর্মী আহত হন। এ ঘটনায় প্রতিমন্ত্রী গ্রুপ এবং ইয়াকুব আলী গ্রুপ একে অপরকে দোষারোপ করেছেন। অন্যদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টচার্য্যরে ছেলে ও ভাগ্নেকে দোষারোপ করে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে পৌর শহরে সন্ধ্যায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার খুলনায় প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যোগদানের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী এসএম ইয়াকুব আলীর নেতৃত্বে সকাল ১০টার দিকে মনিরামপুর থেকে নেতা-কর্মীরা শতাধিক গাড়ির বহর নিয়ে রওনা হয়। পথিমধ্যে নাগোরঘোপ বাজারে রাস্তার পাশে এ গাড়ির বহর থামানো হয় স্থানীয় নেতা-কর্মীদের নেওয়ার জন্য। পাশেই অবস্থান করছিলেন প্রতিমন্ত্রী গ্রুপের চারটি বাস। এ সময় পাশ দিয়ে একটি মাইক্রোবাসে করে যাচ্ছিলেন প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যরে ছেলে সুপ্রিয় ভট্টাচার্য্য শুভ ও ভাগ্নে উপজেলার যুবলীগের আহ্বায়ক ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুসহ কয়েকজন। মনোনয়ন প্রত্যাশী ইয়াকুব আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেনসহ অন্যান্যরা অভিযোগ করেন, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে শুভ এবং বাচ্চুর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা তাদের গাড়ির বহর ছাড়তে বাঁধা প্রদান করেন। এ নিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে দু গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। ইয়াকুব আলী, মিকাইল হোসেন, শামছুল হক মন্টুসহ অনেকেই অভিযোগ করেন প্রতিমন্ত্রীর ছেলে শুভ ও ভাগ্নে বাচ্চুর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা লাঠিসোটা, ইটপাটকেল, হকিস্টিক, চাইনিজ কুড়াল নিয়ে তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে বেধড়ক মারধর করে। এতে ইয়াকুব আলীর ভাগ্নে শাহরিয়ার কবিরের মাথা ফেটে যায়। এ ছাড়াও আহত হন মামনুর রশিদ, প্রহ্লাদ, সাইফুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট সুব্রত ব্যানার্জী, লালুসহ অন্তত ১০ জন। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। তবে প্রতিমন্ত্রীর ভাগ্নে যুবলীগ নেতা উত্তম চক্রবর্তী জানান, ইয়াকুব আলীর গাড়ির বহরের পাশে তাদের চারটি বাস ছিল। কিন্তু ইয়াকুব আলীর লোকজন ওই চারটি বাস সেখান থেকে জোরপূর্বক বের করে দিচ্ছিলেন। এ সময় তারা প্রতিবাদ করেন মাত্র। বাচ্চুর অভিযোগ ইয়াকুব আলীর লোকজনই তাদের ওপর হামলা চালায়।
অন্যদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টচার্য্যরে ছেলে ও ভাগ্নেকে দোষারোপ করে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সন্ধ্যায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করা হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন, এসএম ইয়াকুব আলী, মিকাইল হোসেন, সন্দীপ ঘোষ, শামছুল হক মন্টু প্রমুখ।
মনিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মনিরুজ্জামান জানান, পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। তবে এ ব্যাপারে কেউ থানায় অভিযোগ করেননি।

Lab Scan