খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া মামলার শুনানি ৫ সেপ্টেম্বর

বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির তারিখ পিছিয়ে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর ধার্য করেছেন আদালত। কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নবনির্মিত ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক এ এস এম রুহুল ইমরানের আদালত আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।
খালেদা জিয়ার আইনজীবী জিয়া উদ্দিন জিয়া জানান, বেগম খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। কারাকর্তৃপক্ষও জানিয়েছে যে, উনি অসুস্থ। এ কারণে তাকে আদালতে আনা সম্ভব হল না। আদালত আমাদের উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করেন। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে দায়ের করা বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। এরপর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর গত ১৩ মার্চ থেকে একাধিক কার্যদিবসে অসুস্থতার কারণে খালেদা জিয়াকে আদালতে না আনায় মামলার কার্যক্রম মুলতবি করা হয়।
উল্লেখ্য, দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে উত্তোলন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণে ঠিকাদার নিয়োগে অনিয়ম এবং রাষ্ট্রের ১৫৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা ক্ষতি ও আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি শাহবাগ থানায় খালেদা জিয়াসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পরে ওই বছরের ৫ অক্টোবর পুলিশ তদন্ত করে আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি আইনের ৪০৯/১০৯ তৎসহ ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

ভাগ