“ক্লিন ফিড চ্যানেল বন্ধ হলে বিবেচনা হতে পারে”

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ অনুষ্ঠানের ফাঁকে বিজ্ঞাপন প্রচার করে- এমন বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সম্প্রচার বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশের কেবল অপারেটররা। তবে যেসব চ্যানেল বিজ্ঞাপন প্রচার করে না, সেসব চ্যানেলের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে এবং সরকারের আইন মেনে সম্প্রচারিত হতে পারবে। শনিবার (২ অক্টোবর) তথ্য মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র এই তথ্য জানিয়েছে। বাংলাদেশের আইন মেনে বিদেশি যেকোনো চ্যানেল বিজ্ঞাপনবিহীন সম্প্রচার করতে পারবে। ভারত, পাকিস্তান কিংবা ইউরোপের অনেক দেশেই এ আইন রয়েছে। এদিকে আজ চট্টগ্রামে এক অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, অনলাইন টিভির জন্য খুব শিগগিরই নীতিমালা তৈরি করা হচ্ছে। নীতিমালা জারী হওয়ার পর সে নীতিমালা ব্যতয় ঘটালে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
প্রসঙ্গত, সরকারি নির্দেশনা মেনে শুক্রবার (১ অক্টোবর) থেকে এসব চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ রাখা হয়েছে। কেবল ঢাকা নয়, দেশের অন্যান্য এলাকাতেও সরকারের নির্দেশনা মানা হচ্ছে। এর আগে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত একটা সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল ১ অক্টোবর থেকে ক্লিন ফিড ছাড়া বিদেশি চ্যানেল বাংলাদেশে সম্প্রচার করা যাবে না। ক্লিন ফিড মানে হলো- কোনো বিজ্ঞাপন থাকতে পারবে না। বর্তমান আইন অনুযায়ী বিদেশি চ্যানেলের অনুষ্ঠান বাংলাদেশে দেখাতে হলে ‘ক্লিন ফিড’ দেখাতে হবে। এদিকে ক্লিন ফিড রয়েছে এমন কিছু চ্যানেল বন্ধ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন কেউ। এ বিষয়ে কেবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম আনোয়ার পারভেজ বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর বাইরে কোনো বিষয় থাকলে অবশ্যই বিবেচনা করবে সংশ্লিষ্টরা।’

Lab Scan