কেসিসিকে কাজে প্রমাণ করতে হবে তারা ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আন্তরিক : খুলনা বিএনপি

0

খুলনা ব্যুরো ॥ মারাত্মক রূপ নিয়েছে ডেঙ্গু পরিস্থিতি। লাফিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে প্রাণহানিও। ডেঙ্গু মৌসুম আসার আগেই চলতি বছরে ইতোমধ্যে সর্বোচ্চ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন উল্লেখ করে খুলনা বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ডেঙ্গু নতুন কোনো রোগ নয়। এটা প্রতিকারের জন্যে খুলনা সিটি করপোরেশন ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের যে উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন ছিল, তাতে তারা সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২১ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি আছে। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছে চারজন ডেঙ্গু রোগী। চলতি বছরে খুলনায় সর্বমোট ৬৬ জন রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছে।
শনিবার মিডিয়া সেল প্রদত্ত বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রতিবছর নগরবাসীর ওপর করের বোঝা চাপানো হচ্ছে। কিন্তু মশা মারার নাম নেই। অবিলম্বে এডিস মশার কবল থেকে নগরবাসীকে রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সিটি করপোরেশনকে আরও বেশি তৎপর হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি নেতারা বলেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে। নিজ নিজ বাড়িতে বা পাড়ার যেসব স্থানে এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র রয়েছে সেগুলোও ধ্বংস করে নিজের সুরক্ষা নিজেদের তৈরি করতে নগরবাসীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন। একই সাথে সিটি করপোরেশনের শুধু কথায় নয় কাজে প্রমাণ করতে হবে তারা ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আন্তরিক।
বিবৃতিদাতারা হলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর বিএনপির সম্মানিত সদস্য রকিবুল ইসলাম বকুল, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক শফিকুল আলম মনা, জেলা বিএনপির আহবায়ক আমীর এজাজ খান, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মনিরুল হাসান বাপ্পি প্রমুখ।

 

Lab Scan