কেডিএ’র চেয়ারম্যানের নিকট ৩ শতাধিক পরিবারকে উচ্ছেদ না করার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

0

শেখ বদরউদ্দিন, ফুলবাড়ীগেট (খুলনা)॥ খানজাহান আলী থানা এলাকার শিরোমনি বাজার থেকে বালিরঘাট, গাফফারফুড মোড় এবং কেবলঘাট থেকে বাদামতলা মোড় পর্যন্ত কেডিএর অব্যবহারহৃত জায়গায় অস্থায়ী ভিত্তিতে ঝুপড়ী ঘর নির্মান করে অসহায় ছিন্নমুল প্রায় তিনশতাধিক পরিবার দির্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে। খুলনা উন্নয়ন কতৃপক্ষ (কেডিএ) এর পক্ষ থেকে ২ দিনের মধ্যে উক্ত জায়গা অপসারনের জন্য মাইকিং করা হয়। বর্তমান করোনা কালিন সময়ে ছিন্নমুল জনগোষ্ঠিকে উক্ত জায়গা থেকে অপসারন না করে মানবিক দিক বিবেচনা করার জন্য মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় খুলনা উন্নয়ন কতৃপক্ষ (কেডিএ) এর চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম মিরাজুল ইসলাম এর নিকট অসহায় ছিন্নমুল মানুষের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন দেশের ছিন্নমূল জনগোষ্ঠীর জন্য জায়গাসহ বাসস্থান নির্মান করে দিচ্ছে, ঠিক তখনই কেডিএর মত সুনামধন্য প্রতিষ্ঠান মানবিক দিক বিবেচনা না করে যদি উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনা করে, তাহলে খোলা আকাশের নীচে শত শত পরিবার পরিজন তাদের ছেলে মেয়ে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হবে। এছাড়া এ এলাকার জুটমিলগুলি বন্দ থাকায় ঘড়ভাড়া দিতে না পেরে অনেক পরিবার বাধ্য হয়ে ঝুপড়ি ঘড় বেধে থাকছে, বিকল্প ব্যবস্থা না করে তাদেরকে এই জায়গা থেকে উচ্ছেদ করলে বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্য হবে। এছাড়া ইতিপুর্বে কেডিএ এই এলাকা জমি অধিগ্রহন করলেও অনেক জমির মালিক এখনও তাদের অধিগ্রহনের চুড়ান্ত বিল পাইনি। এরকম অসংখ্য পরিবার বর্তমানে রাস্তার পাশে কেডিএর অব্যবহৃত জায়গাতে বসবাস করছে। এই এলাকার ছিন্নমূল ও বস্তিবাসী যাতে নির্বিঘেœ কেডিএর অব্যবহৃত জায়গায় বসবাস করতে পারে সে ব্যাপারে কেডিএ চেয়ারম্যান এর নিকট সুদৃষ্টি কামনা করেন। এছাড়া এই এলাকার কেডিএর অব্যবহৃত জায়গায় কেডিএর কোন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করা হয়নি। ভবিষ্যতে এই অব্যবহৃত জায়গায় কোন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করা হলে ছিন্নমুল এ সকল পরিবারগুলি এই জায়গা ছেড়েদেবে বলেও স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন। স্মারকলিপি প্রদান কালে উপস্থিত ছিলেন আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এস ,এম রাসেল, গিলাতলা যুব সংঘের সভাপতি ও খানজাহান আলী থানা সাংবাদিক ইউনিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সাইফুল্লাহ তারেক, শেখ আঃ সবুর (সাবু) মোঃ বশিরুল্লাহ , সাংবাদিক মিহির রজ্ঞন বিশ^াস শেখ আবুল হোসেন, আমির মুন্সি, মোঃ জাফর খান, মোঃ জাবের , মোঃ একরামুল, শেখ ফারুক হোসেন, মোঃ জুয়েল, ফেরদৌস হোসেন (ময়না), হাফেজ মোঃ মিরাজ হোসেন, মোঃ আনিছ, মোঃ কামাল হোসেন, শেখ শামিম হোসেন, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ কাদের, কাশেম, মোঃ সুমন খান, আশরাফ, শিখা রানি, মোঃ লুৎফর প্রমুখ।

Lab Scan