কালীগঞ্জে জিনের ডাক্তার সেজে প্রতারণা

0

 

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) সংবাদদাতা॥ ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সাধারণ রোগীদের জিন দিয়ে চিকিৎসার নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। মুন্না হাসান ইমন নামের ওই যুবক নামের আগে কবিরাজ লাগিয়ে রোগীদের নিকট থেকে প্রতারণার মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। কথিত এই কবিরাজ উপজেলার কোলা ইউনিয়নের কাদিরডাঙ্গা গ্রামের মোহাম্মদ মন্তেজ আলী ও ফিরোজা বেগম দম্পতির বড় ছেলে।
অভিযোগ রয়েছে, রোগীদের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার নামে জিনের মাধ্যমে চিকিৎসা প্রদানের কথা বলে প্রতারণা করে চলেছেন। তার নিকট আসা রোগীদের মধ্যে নারীদের সংখ্যাই বেশি। প্রত্যেক রোগীকে প্রথমে ৫০ টাকা দিয়ে সিরিয়াল রশিদ সংগ্রহ করতে হয়। তারপর সিরিয়াল মেনে একটি ছোটো টিনের ঘরে অত্যন্ত গোপনীতা রক্ষা করে মোবাইলবিহীন রোগীকে প্রবেশ করানো হয়। টিনের ঘরে বসে থাকা ভুয়া কবিরাজ মুন্না নানা রকম আয়ুর্বেদিক ও গাছগাছালির ওষুধ, তেল পড়া , পানি পড়া এবং তাবিজ রোগীদের হাতে ধরিয়ে দিয়ে ৫ শ থেকে ৭ শ টাকা আদায় করে নেন।প্রতারক কবিরাজের মা ফিরোজা বেগমের সাথে এই প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি বলেন, বর্তমানে দূর-দূরান্তের মানুষ রাত ২ টা থেকে আসা শুরু করে আমাদের বাড়িতে। সপ্তাহে সোমবার ও শুক্রবার জিনের ডাক্তার বসে আমার ছেলের ঘাড়ে ।
পাশের জেলা মাগুরার শালিখা থেকে প্যারালাইসিস রোগী হান্নান বিশ্বাসকে তার পরিবারের লোকজন এই কবিরাজের কাছে দেখাতে এসেছেন। এখানে আগেও দুদিন এনেছেন হান্নান বিশ্বাসকে। অনেক টাকার ওষুধও দিয়েছিলেন কবিরাজ ছেলেটা। কিন্তু কোন কাজ হয়নি ।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন জানান, জিনের দ্বারা চিকিৎসার বাস্তবিক কোন ভিত্তি নেই। প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে ওই কবিরাজের বাড়িতে গিয়ে তার কার্যক্রম যাচাই করে দেখা হবে। কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান জানান,প্রথমত মানুষকে সচেতন হতে হবে। নিজেদের মধ্যে উপলব্ধি আসতে হবে যে, তিনি চিকিৎসার নামে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন কিনা। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা ওই কবিরাজের ব্যাপারে খোঁজখবর নেব। প্রতারণা এবং অনিয়ম কিছু পেলে তার বিরদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

 

Lab Scan