‘একমাত্র বাংলাদেশেই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি হয়েছে’

রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যেখানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের কথা বারবার বলতে হয়। কারণ মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে এখানে বারবারই বিকৃতি করা হয়েছে। বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু একাডেমি আয়োজিত ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে রেলমন্ত্রী বলেন, বারবার ইতিহাসের কথা বলতে হয়। নতুনদের কাছে মুক্তিযুদ্ধের কথা বলতে হয়। কারণ বারবার ইতিহাস বিকৃতি করা হয়েছে। প্রজন্মকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। যারা মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতা করেছে, তারাই বঙ্গবন্ধু হত্যার পর মুক্তিযুদ্ধকে বিতর্কিত করেছে। ইতিহাস মীমাংসিত বিষয়। তা নিয়ে কখনও বিতর্ক হতে পারে না। পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে মীমাংসিত ইতিহাস নিয়ে এত বিকৃতি হয় নি।
’৭০ এর নির্বাচন স্বাধীনতার মাইলফলক ছিল জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা অর্জনের পথে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ এবং ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কাজেই মুজিবনগর দিবসও জাতির জীবনে গুরুত্বপূর্ণ দিন। বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার গঠন ছিল স্বাধীনতা অর্জনের প্রথম পদক্ষেপ। এসময় রেলওয়ে নিয়ে মন্ত্রী বলেন, এক সময় রেলওয়েকে ধংস করা হয়েছিল। ১৯৯১ সালে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে ১০ হাজার কর্মী একদিনেই ছাঁটাই করা হয়েছিল। বিএনপি সরকার রেলের কোনো সংস্কার করে নি। আওয়ামী লীগ সরকার ২০১১ সালে পৃথক রেলপথ মন্ত্রণালয় গঠন করে। এরপর পর্যায়ক্রমে কোচ, ইঞ্জিন বাড়ানো হচ্ছে। নতুন নতুন লাইন নির্মাণ করা হচেছ। সমন্বিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে রেলকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন দেশকে স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে। সম্মিলিত চেষ্টার মাধ্যমে একটি উন্নত জাতি গঠনে বঙ্গবন্ধুর কন্যা চেষ্টা করছেন। রেল খাতকেও একটি উন্নত বিশ্বের পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাদ্দ দিচ্ছেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় কমিটির মহাসচিব সফিকুল বাহার মজুমদার টিপু, আওয়ামী লীগের নেতা এমএ করিম, বঙ্গবন্ধু একাডেমির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির মিজি। বঙ্গবন্ধু একাডেমির সভাপতি মো. নাজমুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু।

ভাগ