ঈদের ছুটিতে করোনা কাড়ল ১২৭ প্রাণ, নতুন রেকর্ডে শনাক্ত আরও ১০ হাজার ১৩৬ জন

সুন্দর সাহা॥ মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে ঈদের ছুটিতে মারা গেলেন ১২৭ জন। একই সময়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫১ হাজার ৯১৫ জনের এবং এর মধ্যে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ১০ হাজার ১৩৬ জন। এ নিয়ে করোনায় দেশে মোট ৫৫৯ জন মারা গেলেন। আর দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা হলো দুই লাখ ৭৫ হাজার ৭৮৬টি। মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪০ হাজার ৩২১। কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সূত্রেই মিলেছে এসব তথ্য।
সূত্র মতে, গতকাল ২৮ মে বৃহস্পতিবার দেশে ২ হাজার ২৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এটিই এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ শনাক্ত। এদিন করোনায় আরও ১৫ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫৫৯ জনে। মারা যাওয়া ১৫ জনের মধ্যে পুরুষ ১১ জন, নারী চার জন। এ দিন ৪৯টি ল্যাবে পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ৯ হাজার ২৬৭টি। তবে আগের দিনের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ৯ হাজার ৩১০টি।
এদিকে, গত ২৭ মে বুধবার দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২২ জন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫৪৪ জনে। এ সময়ে আরও এক হাজার ৫৪১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। উল্লেখিত সময়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে সাত হাজার ৮৪৩টি, পরীক্ষা করা হয়েছে আট হাজার ১৫টি।
এছাড়া, ২৬ মে মঙ্গলবার মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এদিন দেশে আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫২২ জনে দাঁড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ১ হাজার ১৬৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও ২৪৫ জন সুস্থ হয়েছেন। এ সময়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৪ হাজার ৪১৬ জনের। আর পরীক্ষা করা হয়েছে ৫ হাজার ৪০৭ জনের। এ সময়ে আইসোলেশনে নেওয়া হেয়ছে ১৮২ জনকে।
এদিকে, গত ২৫ মে সোমবার পবিত্র ঈদ উল ফিতরের দিনেও বিষাদ ভর করে ছিল সবার চোখে মুখে। মহামারি করোনাভাইরাসে গ্রাস করেছে গোটা বিশ্ব। পাল্টে দিয়েছে জীবনের বাস্তবতা। এদিন প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়, এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫০১ জনে দাঁড়িয়েছে। এদিন নতুন করে আরও ১ হাজার ৯৭৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং সুস্থ হয়েছেন ৪৩৩ জন। এ সময়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয় ১১ হাজার ৫৪১ জনের এবং নমুনা পরীা করা হয়েছে ৯ হাজার ৪৫১ জনের। এর মধ্যে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৯৭৫ জনের। ২১ জনের মধ্যে ১৬ জন পুরুষ এবং ৫ জন নারী। এসময়ে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে ২৮৪ জনকে ও ছাড়া পেয়েছেন ৯৫ জন।
এছাড়া, গত ২৪ মে দেশে এদিন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২৮ জন। এটিই এ পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৮০ জনে। এদিন নতুন করে এক হাজার ৫৩২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এসময়ে সুস্থ হয়েছেন ৪১৫ জন। এদিন নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৯ হাজার ১৮৪টি, পরীা করা হয়েছে আট হাজার ৯০৮টি। এই সময়ে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ২৫৩ জন এবং আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৯৪ জন। এদিকে এই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিন মিলে কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে তিন হাজার ৬৩ জনকে এবং কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড়া পেয়েছেন তিন হাজার ৮৭ জন।
এদিকে, গত ২৩ মে শনিবার দেশে নতুন করে এক হাজার ৮৭৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা শনাক্ত হলেন ৩২ হাজার ৭৮ জন। এদিন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আর ২০ জন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৫২ জনে। সুস্থ হয়েছেন ২৯৬ জন। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ১৬ জন পুরুষ এবং চার জন নারী। এ সময়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৯ হাজার ৯৭৭ টি, আগের নমুনাসহ পরীা করা হয়েছে ১০ হাজার ৮৩৪টি। উল্লেখিত সময়ে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ২৮৬ জনকে।
প্রসঙ্গতঃ স্বাস্থ্য অধিদফতর বরাবরের মতোই করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানান বুলেটিনে। চীনের উহান শহর থেকে গত ডিসেম্বরে ছড়ানো করোনাভাইরাস এখন গোটা বিশ্বকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৫৮ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩ লাখ ৫৭ হাজার। তবে ২৫ লাখের মতো রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ।

ভাগ