ইতিহাসের সর্বনিম্নে এশিয়ার স্বর্ণ আমদানি

লোকসমাজ ডেস্ক।। চীন ও ভারত এ বছর স্বর্ণের আমদানি কমিয়েছে। এতে এশিয়ার বাজারে সামগ্রিকভাবে মূল্যবান ধাতুটির আমদানি নিম্নমুখী রয়েছে। লন্ডনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ক্যাপিটাল ইকোনমিকসের পণ্যবিষয়ক সহযোগী অর্থনীতিবিদ কিরান ক্ল্যান্সি জানান, চলতি বছরের অক্টোবরে চীন ও ভারতে স্বর্ণের আমদানি রেকর্ড কমেছে। এতে এশিয়ার সম্মিলিত স্বর্ণ আমদানি কমে ইতিহাসের সর্বনিম্নে ঠেকেছে। খবর কিটকো নিউজ।
স্বর্ণের বৃহত্তম ভোক্তা দেশ চীন। দেশটির আমদানীকৃত স্বর্ণের প্রবেশদ্বার হলো হংকং। জুলাইয়ে হংকং হয়ে চীনের স্বর্ণ আমদানি কমে আট বছরে সর্বনিম্নে চলে আসে। এর পরের মাসে বাড়লেও সেপ্টেম্বরে আবার নিম্নমুখী হতে শুরু করে মূল্যবান খনিজ পণ্যটির আমদানি। অক্টোবরে দেশটির স্বর্ণ আমদানি কমে ৫০ টনের নিচে নেমেছে।
এদিকে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের জুলাই থেকে ভারতের স্বর্ণ আমদানিতে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধির রেকর্ড শুরু হয়। তবে অক্টোবরে এসে সেপ্টেম্বরের তুলনায় ৫ শতাংশ বেশি প্রবৃদ্ধি নিয়ে দেশটি ১৮৪ কোটি মার্কিন ডলার সমমূল্যের স্বর্ণ আমদানি করেছে, যা গত বছরের একই মাসের তুলনায় ১৫ শতাংশের মতো কম।
চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধে (এপ্রিল-অক্টোবর) দেশটি আন্তর্জাতিক বাজার থেকে মোট ১ হাজার ৭৬৩ কোটি ডলার সমমূল্যের স্বর্ণ আমদানি করেছে, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৯ শতাংশ কম।
মূলত দেশটির চলতি হিসাবে ঘাটতি (সিএডি) ও বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাসে সরকার এ অর্থবছরের বাজেটে স্বর্ণ আমদানি শুল্ক বাড়িয়ে দিয়েছে। আগের বছর ভারতে হলুদ ধাতুটির আমদানি শুল্ক ছিল ১০ শতাংশ। এ বছর তা বাড়িয়ে ১২ দশমিক ৫ শতাংশে উন্নীত করা হয়। এছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে সম্প্রতি খনিজ পণ্যটির দাম বেড়ে ছয় বছরের সর্বোচ্চে উঠে যায়। এতে ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম বেড়ে ধাতুটির বিক্রি কমে যায়। এমনকি দেশটির উৎসবগুলোও স্বর্ণের চাহিদা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখতে পারেনি।

ভাগ