আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো: সাকিব

বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন দুই ভাগে বিভক্ত— ক্রিকেটার বনাম বিসিবি। ক্রিকেটারদের ১১ দফার দাবিতে ধর্মঘটে নামার পরদিন জরুরি বোর্ড সভা শেষে ক্ষুব্ধতা ঝরেছে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসানের কণ্ঠে। তার বক্তব্যের পর ক্রিকেটাররা কী ভাবছেন? এ ব্যাপারে সাকিব আল হাসান অবশ্য খুব বেশি কিছু বলতে চাননি।
সোমবার সাকিবের নেতৃত্বে বিভিন্ন দাবি নিয়ে বিসিবির একাডেমি মাঠে অবস্থান নেয় বাংলাদেশ জাতীয় দল ও প্রথম শ্রেণি খেলা ক্রিকেটাররা। ১১ দফা দাবি মানা না পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেট থেকে ধর্মঘটের ডাক দেন তারা। দিনভর ক্রিকেটারদের নিয়ে আলোচনার পর রাতে বিসিবি থেকে জানানো হয়েছিল মঙ্গলবার জরুরি বোর্ড সভা ডাকার বিষয়।
বোর্ড সভা শেষে ক্রিকেটারদের একহাত নিয়েছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল। ক্রিকেটাররা খেলতে না চাইলে, তার কিছু করার নেই বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। এমনকি পেছনে থেকে এই আন্দোলনে কলকাঠি কারা নাড়ছে, সেটা তিনি জানেন ‍বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে গেছেন। বোর্ড সভাপতির সংবাদ সম্মেলনের পর সাকিবের কাছ থেকে জানতে চাওয়া হয়েছিল, এ ব্যাপারে তাদের পদক্ষেপ কী? মঙ্গলবার গ্রামীণফোনের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে চুক্তি করেছেন সাকিব। সেই অনুষ্ঠানেই এই অলরাউন্ডার শুধু জানিয়ে গেছেন, ‘আমরা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো।’ বিসিবি সভাপতির সংবাদ সম্মেলনের পর বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাদের সবার ফোনই বন্ধ পাওয়া গেছে।

ভাগ