আমনের ভরা মৌসুমেও চালের দাম বাড়ছে

0

লাগাতার অস্থিতিশীল দেশের চালের বাজার। যৌক্তিক কোনো কারণ ছাড়াই ধান-চালের ভরা মৌসুমেও সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে। তথ্য উপাত্য বলছে ব্যবসায়ীদের কারসাজি ছাড়া বাজারে চালের মূল্য বৃদ্ধির কোনো কারণ নেই। এবারও আমন ওঠা মৌসুম শুরু হয়ে গেছে। এরইমধ্যে অনেক এলাকায় মাঠ ফাঁকা হয়ে কৃষকের গোলায় উঠেছে নতুন ধান। এই মৌসুমে গতবারের তুলনায় ছয় লাখ মেট্রিক টন আমন ধান বেশি উৎপন্ন হবে বলে আশা করছে কৃষি বিভাগ। মাঠ ফসলের তথ্যও বলছে, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন অনেক ভালো হয়েছে। তার পরও কমছে না চালের দাম। টিসিবির তথ্য বলছে, এখন খুচরা বাজারে যে দামে চাল বিক্রি হচ্ছে তা আগের বছরের তুলনায় ৭ শতাংশ পর্যন্ত বেশি। রাজধানীসহ দেশের প্রায় সর্বত্র বাজারে সাধারণ মানের নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা কেজি। ধান ওঠার আগেও এই দামই ছিল। এ ছাড়া মোটা আটাশ ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, কাজললতা ৫২ থেকে ৫৪ টাকা, পাইজাম ৫২ থেকে ৪৫ টাকা, গুটি স্বর্ণা ৪২ থেকে ৪৪ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।
আমন মৌসুম শুরু হওয়ার পরও বাজারে চালের দাম বাড়তি কেন? এ প্রশ্নের জবাবে ব্যবসায়ীদের ভাষ্য হচ্ছে, এখনো বাজারে নতুন চাল পুরোপুরি না আসার কারণে পুরনো চালের দাম কমছে না। এ ছাড়া ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় চালের সরবরাহ খরচ বেড়েছে। ফলে এই সময়টাতে দাম যতটুকু কমার কথা ছিল তা কমছে না। তাদের হিসাবে ডিজেলের দাম বাড়ায় কেজিপ্রতি ২৬ পয়সার ওপরে সরবরাহ খরচ বেড়েছে। আর দৈনন্দিন ক্রেতা বলছে, ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে কেজিতে বেড়েছে দু’টাকা। আমরা জানি, বাংলাদেশের বাজারে একটি অদৃশ্য সিন্ডিকেট সব সময় সক্রিয়। পণ্যমূল্য ওঠা-নামায় এই সিন্ডিকেটের হাত থাকে। দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রেও থাকে নানা অজুহাত। এই সিন্ডিকেট ক্ষমতাসীনদের ব্যবসায়ী মহলের গড়া। এ ছাড়া এখানে কোনো পণ্যের দাম একবার বেড়ে গেলে সহজে তা কমানো যায় না। চালের বাজারও তারাই নিয়ন্ত্রণ করে।
চালের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে শুরুতেই বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া দরকার বলে আমরা মনে করি। সরকার নিজের মজুদ হিসাব করে চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে সামঞ্জস্য রাখতে পারলে ব্যবসায়ীদের কারসাজি করার সুযোগ থাকবে না। সরকারের মজুদ বাড়িয়ে আগেভাগে বিকল্প বিপণন ব্যবস্থা চালু করা গেলে বাজারে তার প্রভাব পড়বে। সার্বক্ষণিক বাজার মনিটরিং চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সাহায্য করবে। বাজার স্থিতিশীল রাখতে অর্থাৎ চালসহ পণ্যমূল্য ক্রয় ক্ষমতায় রাখতে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

Lab Scan