আন্তর্জাতিক সংবাদ

পাকিস্তানে দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ১৬
পাকিস্তানের সাদিকাবাদে যাত্রীবাহী ট্রেনের সঙ্গে মালবাহী ট্রেনের সংঘর্ষে ১৬ জন নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন ৮৪ জন। পাকিস্তানি গণমাধ্যম দ্য ডন জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ওয়ালহর রেলওয়ে স্টেশনে আকবর এক্সপ্রেসের সঙ্গে মালবাহী ট্রেনটির সংঘর্ষ হয়। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, সিগন্যাল চেঞ্জের সময় যাত্রীবাহী এক্সপ্রেস লুপ লাইনে ঢুকে পড়লে স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা মালবাহী ট্রেনটিকে আঘাত করে। এতে যাত্রীবাহী ট্রেনটির পাঁচটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে মারাত্মকভাবে তিগ্রস্ত হয় এবং বহু যাত্রী হতাহত হয় ও বগিগুলোতে আটকা পড়ে। আকবর এক্সপ্রেস লাহোর থেকে দণি পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর কোয়েটায় যাচ্ছিল। উদ্ধারকর্মীদের পাশাপাশি পুলিশ ও পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সদস্যরাও উদ্ধারকাজে সহায়তা করছেন বলে পুলিশের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন।

সন্তান কোলে নিতে জানেন না রাজবধূ মেগান!
ব্রিটিশ রাজবধূ মেগান মার্কেল মাতৃত্ব নিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন। ডেইলি মেইল তাদের এক প্রতিবেদনে এমনটিই জানিয়েছে। বুধবার ৩৭ বছর বয়সী মেগান তার সদ্য জন্ম নেয়া শিশুপুত্র আর্চি মাউন্টব্যাটেন-উইন্ডসোরকে নিয়ে ওয়াকিংগামে বিলিংবিয়ার পোলো কাবে যান। সেখানে আরেক রাজবধূ কেট মিডলটনও তার বাচ্চাদের নিয়ে আসেন। প্রিন্স উইলিয়াম ও হ্যারি কাবটিতে একটি চ্যারিটি পোলো ম্যাচে অংশ নেন। সেখানে সময় কাটানো শেষে দুই মা ইন্সটাগ্রামে নিজেদের কয়েকটি ছবি পোস্ট করেন। ইন্সটাগ্রামে পোস্টকৃত ছবিতে দেখা যায়, মেগান তার শিশুপুত্রকে এমন অস্বস্তিকরভাবে কোলে নিয়ে রয়েছেন, যেন এখনই কোল থেকে পড়ে যাবে সে। আর এতেই েেপছেন ইন্সটাগ্রামে মেগান অনুসারীরা। একের পর এক তীর্যক মন্তব্যে ডাচেজ অব সাসেক্সকে তুলোধুনো করে ছাড়েন তারা। একজন লেখেন, মেগানকে দেখে মনে হচ্ছে বাচ্চাটাকে মাটিতেই ফেলে দেবেন তিনি। আরেকজনের মন্তব্য, মেগান জানেনই না কীভাবে নিজের সন্তানকে কোলে নিতে হয়! সত্যিই লজ্জাজনক।

পর্যটকদের ফেলা প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে ৯ হরিণের মৃত্যু
প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে জাপানে নয়টি হরিণ মারা গিয়েছে। গত তিন মাসে দেশটির নারা পার্কে এ প্রাণীগুলো মারা যায় বলে একটি প্রাণী অধিকার সংরণ সংগঠন জানায়। বিবিসি জানায়, প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে হরিণগুলো মারা গেছে জানিয়েছে দ্য নারা ডিয়ার প্রিজারভেশন ফাউন্ডেশন। তারা ১৪টি হরিণের পেটে বিপুল পরিমাণ প্লাস্টিক ব্যাগ এবং খাবারের মোড়ক পেয়েছেন। এসব হরিণের ৯টি মারা গেছে গত মার্চ থেকে জুন মাসের মধ্যে। একটি প্রাণীর পেটেই পাওয়া গেছে ৪ কেজি আবর্জনা। যার অধিকাংশই প্লাস্টিক বর্জ্য। দ্বীপটিতে পর্যটনদের ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক ব্যাগ ও খাবারের মোড়ক খেয়ে মারা গেছে হরিণগুলো। বর্জ্যগুলো থেকে খাবারের ঘ্রাণ পেয়ে সেগুলোকে খাবার মনে করে খেয়ে ফেলে তারা। নারা দেশটির জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র। যেখানে ১২০০ এরও বেশি হরিণ স্বাধীনভাবে বিচরণ করে থাকে। সিকা ডিয়ার নামে হরিণগুলো দেশটির প্রাণী বৈচিত্র্যের জাতীয় সম্পদ হিসেবে চিহ্নিত। তাদের রায় আইনও আছে।

ভাগ