আইসিসি চেয়ারম্যান হওয়ার দৌড়ে সৌরভের প্রতিদ্বন্দ্বী জয় শাহ!

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ আগেও একবার শোনা গিয়েছিল, আইসিসির চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে পারেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি। তবে, ভারত তথা বিসিসিআই থেকে সেবার কোনো প্রার্থী দেয়া হয়নি। আইসিসি চেয়ারম্যান হয়েছেন নিউজিল্যান্ডের গ্রেগ বার্কলে। চেয়ারম্যান হিসেবে বার্কলের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে চলতি বছরই। এরপর তার মেয়াদ বাড়ানো না হলে নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচন করতে হবে। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন চলে আসে, এরপর কে হবেন আইসিসির চেয়ারম্যান? আবারও কী সৌরভ গাঙ্গুলি নির্বাচনে লড়াই করার প্রস্তুতি নেবেন? কিন্তু এরই মধ্যে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোতে এলো চাঞ্চল্যকর খবর। সৌরভ গাঙ্গুলিই নয় শুধু, আইসিসি চেয়ারম্যান পদে লড়াই করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন গাঙ্গুলির রানিং মেট, বিসিসিআইয়ের সচিব জয় শাহ। যিনি ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সাবেক চেয়ারম্যান এবং ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-এর ছেলে। জানা গেছে, বর্তমান চেয়ারম্যান গ্রেগ বার্কলে তার মেয়াদ আর বাড়াতে চান না। তেমনটা হলে অবশ্যই নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচন হবে। বার্কলে ২০২০ সালের নভেম্বরে আইসিসির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি ভারতের শশাঙ্ক মনোহরের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন।
দ্য টেলিগ্রাফসহ ভারতের অনেকগুলো মিডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এবং সচিব জয় শাহ উভয়ই আইসিসির পরবর্তী সভাপতি হতে চান। প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে যে, আইসিসির নতুন সভাপতি হওয়ার দৌড়ে সৌরভ এবং শাহ এগিয়ে রয়েছেন। কলকাতার দ্য টেলিগ্রাফ লিখেছে, ‘আইসিসির চেয়ারম্যান হওয়ার জন্য নিজেই আগ্রহ প্রকাশ করেছেন জয় শাহ। ২০২৩ বিশ্বকাপের আয়োজক যেহেতু ভারত, সে কারণে এখনই নিশ্চিত ধরে নেয়া যায় যে ভারত থেকেই হবেন পরবর্তী আইসিসি চেয়ারম্যান। এই সুযোগটাই এখন নিতে চাচ্ছেন জয় শাহ।’ জয় শাহ এখন দায়িত্ব পালন করছেন এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) চেয়ারম্যান হিসেবেও। যে কারণে এরই মধ্যে কয়েকটি আইসিসির বোর্ড মিটিংয়ে তিনি উপস্থিত থেকেছেন। আর আইসিসির সংবিধানে রয়েছে, বর্তমান অথবা সাবেক কোনো ডিরেক্টর যদি আইসিসির চেয়ারম্যান হতে চান, তাহলে তার অবশ্যই অন্তত একটি বোর্ড মিটিংয়ে উপস্থিত থাকতে হবে। তাহলেই তিনি এই পদের জন্য নির্বাচন করতে পারবেন। সৌরভ কিংবা জয় শাহ- এ দুজনের মধ্যে কেউ যদি পরবর্তী আইসিসি চেয়ারম্যান হন, তবে তিনি হবেন ভারতের পঞ্চম কর্মকর্তা, যিনি আইসিসির শীর্ষ পদে অধিষ্ঠিত হবেন। এর আগে জগমোহন ডালমিয়া (১৯৯৭-২০০০), শারদ পাওয়ার (২০১০-২০১২), এন শ্রীনিবাসন (২০১৪-২০১৫) এবং শশাঙ্ক মনোহর (২০১৫-২০২০) এই পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। বর্তমান আইসিসি চেয়ারম্যান বার্কলে, অকল্যান্ডে অবস্থিত একজন পেশাদার আইনজীবী। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে পেশাদার প্রতিশ্রুতির কারণে বার্কলে তার মেয়াদ বাড়াতে চান না। যদিও তিনি মেয়াদ বাড়াতে চান না- এমন কিছু এখনও নিশ্চিত নয়। তবে তার বিদায়ের সম্ভাব্যতা ধরে নিয়েই আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন আইসিসি চেয়ারম্যান হতে ইচ্ছুকরা এবং এমন পরিস্থিতিতে ২০২২ সালের নভেম্বরে আইসিসি তার নতুন চেয়ারম্যান পেতে পারে। আইসিসি সভাপতি দুই বছরের জন্য নির্বাচিত হন এবং ছয় বছরের বেশি বাড়ানো যায় না।

Lab Scan