অ্যাপস স্পেস চ্যালেঞ্জে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন কুয়েটের টিম ‘মহাকাশ’

0

মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের (কুয়েট) টিম ‘মহাকাশ’। ১৬০টিরও বেশি দেশ থেকে ৪ হাজার ৫শটিরও বেশি টিমের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে কুয়েটের চার শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি (বাউয়েট) এর দুই শিক্ষার্থী। এই ছয় শিক্ষার্থীর একটি সমন্বিত টিম ‘মহাকাশ’ নামে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা আয়োজিত নাসার স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের ‘বেস্ট মিশন কনসেপ্ট’ ক্যাটাগরিতে ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়া এই দলটিতে কুয়েট শিক্ষার্থীদের মধ্যে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ’১৫ ব্যাচের সুমিত চন্দ, লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ’১৫ ব্যাচের আলভী রওনক, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ’১৬ ব্যাচের সামির ইমতিয়াজ, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ’১৭ ব্যাচের শিশির কৈরী অংশগ্রহণ করে। বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে কুয়েটের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) আওতাধীন ৪৬ টি পাবলিক বিশ^বিদ্যালয়ের ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির (এ.পি.এ) মূল্যায়ন প্রতিবেদনে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে কুয়েট।
উল্লেখ্য, টিম মহাকাশের উদ্ভাবিত টুলস ‘অ্যাডভান্সড রিগোলিথ স্যাম্পলার সিস্টেম (এআরএসএস)’ মূলত মহাকাশচারীরা ভিনগ্রহের পৃষ্ঠে অভিযানের সময় মুক্তভাবে উড়তে থাকা ধূলিকণা নিয়ন্ত্রণের কাজ করতে পারবে। চাঁদে বিগত মানবমিশনগুলোতে মহাকাশচারীরা পৃষ্ঠতলে উপস্থিত ধূলিকণার মধ্যে কাজ করতে সমস্যার সম্মুখীন হন বলে অভিযোগ করে আসছিলেন। কম গ্র্যাভিটিতে মূলত ধূলিকণাগুলো সহজেই উৎক্ষিপ্ত হয়ে ভাসতে থাকে। ফলে নমুনা সংগ্রহ করতে অসুবিধা হতো মহাকাশচারীদের। একই সঙ্গে মহাজাগতিক রেডিয়েশনের কারণে আয়নিত হওয়ায় তা স্পেসস্যুটের গায়ে লেগে থেকে স্যুট ড্যামেজ করার মতো পরিস্থিতি তৈরি করত। টিম ‘¬¬¬মহাকাশ’ এ সমস্যার কার্যকর একটি সমাধান বের করে একটি টুল সেট উদ্ভাবন করে, যেটি এই ধূলিকণাগুলোকে আবদ্ধ চেম্বারে আটকে ফেলে এবং ধূলিকণাগুলোকে ভেসে থাকার মতো পরিস্থিতি তৈরি করতে দেয় না। বিজ্ঞপ্তি

Lab Scan