অস্তিত্ব সংকটে কপিলমুনির হাড়িয়া নদ

0

কপিলমুনি (খুলনা) সংবাদদাতা ॥ এক সময়কার খরস্রোত বিশাল নদ বলতে বাংলাদেশের মানচিত্রে উল্লেখযোগ্য নাম ছিল পাইকগাছায় বয়ে চলা কপিলমুনির হাড়িয়া। কালের বিবর্তনে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে নদ-নদী জলাশয়গুলো। হাড়িয়া নদী হাজারও স্মৃতির সাক্ষী হয়ে আজও টিকে আছে এ পৃথিবীতে। দখলদাররা বেপরোয়া হয়ে যে যার মত বেড়িবাঁধ দিয়ে ভূমিহীন সেজে বসে আছেন আরও দখলের পাঁয়তারায়।
উল্লেখ্য স্বাধীনতার আগে পরে হতে দেশে ১৪শ নদ-নদীর অস্তিত্ব ছিল। নদী শাসনের জন্য ওয়াপদা ও মাছ চাষের ক্ষেত্রে খাল বেড়িবাঁধসহ নানা কারণে পলিমাটি দ্বারা নদী দ্রুত ভরাট হয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সারাদেশে ৫৪টা নদী সচল, বাকি অচল হয়ে পড়েছে নদ-নদীগুলো।
এ বিষয় পাইকগাছাা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কর্মকর্তা সুজয় কর্মকার বলেন, সব নদ-নদীর তলদেশ পলিমাটি দ্বারা ভরাট হচ্ছে,দিনদিন এ জন্য হাড়িয়া নদী হুমকির মুখে। পাইকগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবল মন্টু বলেন মনুষ্য সৃষ্টি ওয়াপদা বেড়িবাঁধ ঘের মৎস্য খামার নদীর জন্য ভালো নয়।
পাইকগাছা কয়রা খুলনা ৬ সংসদ সদস্য আকতারুজ্জামান বাবু বলেন, মূলত পাইকগাছা ডুমুরিয়া উপজেলায় এ হাড়িয়া নদীর অস্তিত্ব। এ নদীর জন্য এলাকায় লোনাপানির মৎস্য চাষ বেশি হয়ে থাকে। আজ নদীটি মৃত্যুর দিকে ধাবিত,চেষ্টা করছি পুনঃখনন কাজ করতে। উলেখ্য এ নদীটি পুনর্খনন হলে আশপাশ ফসলি জমিসহ মানুষ সব কাজে সুফল পাবে।

 

Lab Scan