অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে স্মিথ-ওয়ার্নার

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরার অপেক্ষা ফুরাল স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারের। বিশ্বকাপ দিয়েই অস্ট্রেলিয়া দলে ফিরছেন তারা। এ দুই তারকা ক্রিকেটারকে নিয়ে আসন্ন বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।
ওয়ার্নার ও স্মিথ দলে ফেরায় কাপাল পুঁড়েছে পিটার হ্যান্ডসকম ও জশ হ্যাজলউডের। ভারতে ওয়ানডে সিরিজে দারুণ পারফর্ম করলেও ব্যাটসম্যানদের প্রতিযোগিতায় জায়গা ছেড়ে দিতে হয়েছে হ্যান্ডসকম্বকে।
বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাওয়ায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সেন্ট্রাল চুক্তিতেও ঠাঁই হচ্ছে ওয়ার্নার-স্মিথের। ২০১৯-২০ মৌসুমের জন্য সেন্ট্রাল চুক্তিতে আসছেন তারা। কেপটাউন টেস্টের পর আগামী ১ জুন ব্রিস্টলে আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবেন এ অসি তারকারা। এর আগে ব্রিসবেনে অনুশীলন ক্যাম্পে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিনটি আনঅফিসিয়াল ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া।
চলমান ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের মধ্য দিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ প্রস্তুতিটাও সেরে ফেলছেন ওয়ার্নার-স্মিথ। কঁনুইয়ের চোট কাটিয়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে দুর্দান্ত পারফর্ম করে চলছেন ওয়ার্নার। অন্যদিকে চোট কাটিয়ে রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে নিজেকে জানান দেওয়ার চেষ্টা করছেন স্মিথ।
চোটের কারণে গত প্রায় আড়াই মাস কোনো ধরনের ক্রিকেটে না খেলা মিচেল স্টার্ক আছেন অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে। তার সঙ্গে জায়গা পেয়েছেন চোট কাটিয়ে ফেরার লড়াইয়ে থাকা আরেক পেসার জাই রিচার্ডসন। তবে দুজনকেই বিশ্বকাপের আগে প্রমাণ করতে হবে ফিটনেস। আগামী ২৩ মে পর্যন্ত স্কোয়াডের চোটাক্রান্ত ক্রিকেটারদের আইসিসির অনুমতি ছাড়া পরিবর্তন করতে পারবে দলগুলো। এরপর পরিবর্তন করতে হলে আইসিসির টেকনিক্যাল কমিটির অনুমোদন লাগবে।
বিশ্বকাপের অস্ট্রেলিয়ার দল:
অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভেন স্মিথ, উসমান খাজা, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মাকার্স স্টয়নিস, অ্যালেক্স কেয়ারি, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, জাই রিচার্ডসন, নাথান কোল্টার-নাইল, জেসন বেহরেনডর্ফ, অ্যাডাম জ্যাম্পা, নাথান লায়ন।

ভাগ