অর্থনৈতিক সংকটে অভিষেকের পরিবার, মুখ খুললেন স্ত্রী

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ ভারতীয় বাংলা সিনেমার দর্শকপ্রিয় অভিনেতা অভিষেক চ্যাটার্জি। গত ২৩ মার্চ দিবাগত রাতে মারা যান তিনি। ৫৭ বছর বয়সে তার এই চলে যাওয়া অনেকেই মেনে নিতে পারেননি। বিশেষ করে তার স্ত্রী সংযুক্তা চ্যাটার্জি ও কন্যা সাইনা ভীষণবাবে ভেঙে পড়েছেন।
এদিকে কিছুদিন ধরে গুঞ্জন উড়ছে অর্থ কষ্টে দিন কাটছে অভিষেক চ্যাটার্জির পরিবারের। শুধু তাই নয়, অভিষেকের চারিত্রিক বিষয় নিয়েও নেতিবাচক খবর উড়ছে। অভিষেকের মৃত্যুর দশদিনও পার হয়নি। এরই মাঝে এই খবর যেন—কাটা ঘায়ে লবণের ছিঁটা। অবশেষে বাধ্য হয়ে স্বামী হারানোর শোক নিয়েই এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন সংযুক্তা।
বুধবার (৩০ মার্চ) দুপুরে বিষয়টি নিয়ে অভিষেকের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে দীর্ঘ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন সংযুক্তা। লেখার শুরুতে সবার কাছে অনুরোধ জানিয়ে সংযুক্তা চ্যাটার্জি বলেন, ‘সাইনা (মেয়ে) ও আমাকে এই কঠিন সময়ে একটু পার্সোনাল স্পেস দিন। এই শোকে আমাদের একটু একা থাকতে দিন।’
অভিষেকের পরিবার অর্থ কষ্টে আছেন। এই খবরের বিষয়ে সংযুক্তা বলেন, ‘বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ও চ্যানেলে যে গুজব রটেছে, দয়া করে তা বিশ্বাস করবেন না। অভিষেক অসাধারণ একজন মানুষ ছিলেন। আমাদের ছেড়ে অভিষেক চলে গেছে। কিন্তু পরিবারকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করে গেছে। অভিষেকের কাছে পরিবারই সব ছিল। অভিষেকের অবর্তমানে আমাদের যাতে কোনো কষ্ট না হয় সেই বিষয়টি নিশ্চিত করে গেছে।’
অভিষেক ব্যক্তিগত জীবনে কারো কাছে হাত সাহায্যের হাত পাতেননি। তার নীতিবোধের জায়গাটি দৃঢ় ছিল। তা উল্লেখ করে সংযুক্তা চ্যাটার্জি বলেন—‘অভিষেকের কঠোর নীতিবোধ ছিল। জীবনে কখনো কারো কাছে হাত পেতে সাহায্য চায়নি। এই মুহূর্তে অভিষেকের সেই নীতিগুলোকে মর্যাদা জানানো উচিত। অভিষেকের আশীর্বাদে আমি নিজেও আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী। আমি যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি ফিনটেক সংস্থায় কর্মরত আছি। অভিষেকের পরিবারের কোনো আর্থিক সাহায্যের প্রয়োজন নেই। তার কোনো প্রাক্তন সহ-কর্মীও সাহায্যের প্রস্তাব নিয়ে আসেননি। এসবই মিথ্যা খবর। অভিষেকের চরিত্রে কখনো দাগ লাগেনি। এই ধরনের খবরে তার আত্মা কষ্ট পাবে। দয়া করে আমরা অভিষেককে একজন অসাধারণ মানুষ হিসেবে মনে রাখি। আমরা যাতে মাথা উঁচু করে সম্মানের সঙ্গে বেঁচে থাকতে পারি, তার জন্য আপনাদের কাছে এই একটাই অনুরোধ। ট্রেন্ডিং গুজব থেকে দূরে থাকুন।’

Lab Scan