অভয়নগরে বিস্তীর্ণ হলুদাভ মাঠ, চোখ ফেরানো দায়

0

নজরুল ইসলাম মল্লিক, অভয়নগর(যশোর)॥ অভয়নগর উপজেলায় এবার সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠে এখন হলুদের ঢেউ। সরিষার এই ফলনে কৃষকের চোখেমুখে আনন্দের আভা ফুটে উঠেছে। চাষিরা বলছেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার ফলন ভালো হয়েছে।
কৃষি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অনুকূল আবহাওয়া আর যথাযথ পরিচর্জার কারণে এবার সরিষার বাম্পার ফলন হয়েছে। মাঘ মাসের শুরুতে ক্ষেত থেকে সরিষা তোলা শুরু হবে। অন্যান্য ফসলের তুলনায় সরিষার উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় এবং গত কয়েক বছর ধরে বাজারে সরিষার ভালো দাম থাকায় চাষিরা দিন দিন সরিষা চাষের দিকে ঝুঁকছেন।উপজেলায় ২ হাজার ১শ ১০হেক্টর জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে। এ অঞ্চলের কৃষকেরা সাধারণত ছয়টি জাতের সরিষা আবাদ করে থাকেন। সেগুলো হচ্ছে উচ্চফলনশীল বিনা সরিষা ৪, বিনা-৯,বিনা-১১,সরিষা বারী-৯,বারী-১৪, বারী-১৫, বারী-১৭, বারী-১৮,বুলেট, টরি-৭ ও পাঞ্জাবজটা জাতের সরিষা।
উপজেলার বাঘুটিয়া, শ্রীধরপুর, ধোপাদী, সিরাজকাটি ও প্রেমবাগ এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়, ফসলের মাঠগুলো সরিষা ফুলের হলুদ রঙে অপরূপ শোভা ধারণ করেছে। মাঠে পরিচর্জার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। দিগন্তজোড়া মাঠে কেবল হলুদের আধিক্য। যতদূর চোখ যায় কেবল হলুদের সমারহ। চোখ জোড়ানো নয়নাভিরাম দৃশ্য। গত কয়েকবছর করোনার প্রাদুর্ভাব, প্রতিকূল আবহাওয়াও প্রকৃতিক দুর্যোগে নাস্তানাবুদ কৃষকরা এবার যেন দুরাশার মেঘ সরিয়ে চোখেমুখে হাসি ফুঁটিয়েছেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে এ উপজেলার ২ হাজার ৫০হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা র্নিধারণ করা হয়েছিলো। যেখানে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ৬০হেক্টর জমিতে বেশি সরিষার চাষ করেছেন চাষি। যা ইতোপূর্বেও সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।

Lab Scan