অপোর নতুন সাব-ব্র্যান্ড রেনো

    ডিভাইস নির্মাতা অপোর নতুন সাব-ব্র্যান্ড ‘রেনো’। চীনে এ সাব-ব্র্যান্ডের ঘোষণা দেয়ার পাশাপাশি লোগো উন্মোচন করা হয়েছে। ১০ এপ্রিল রেনোর আওতায় স্থানীয় বাজারে নতুন একটি ফোন উন্মোচনের কথা বলা হয়েছে। খবর সিনহুয়া।
    রেনো অপোর প্রথম সাব-ব্র্যান্ড নয়। এর আগে রিয়ালমি সাব-ব্র্যান্ড উন্মোচন করে প্রতিষ্ঠানটি, যা ভারতের স্মার্টফোন বাজারে এরই মধ্যে সাড়া ফেলেছে।
    চীনে রেনো সাব-ব্র্যান্ডের ঘোষণা দেয়া হলেও বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। অপোর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটেও রেনো সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য নেই।
    চীনভিত্তিক ডিভাইস নির্মাতা প্রতিটি প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে নিজস্ব সাব-ব্র্যান্ডের ঘোষণা দিয়েছে। ডিভাইস ব্যবসায় বৈচিত্র্য আনতে সাব-ব্র্যান্ড কৌশল বেছে নিয়েছে এসব প্রতিষ্ঠান। এর মাধ্যমে ব্র্যান্ডগুলো নির্দিষ্ট গ্রাহক ও অঞ্চলকে লক্ষ্য করে ব্যবসা সম্প্রসারণের সুযোগ পাচ্ছে। হুয়াওয়ের অনার, শাওমির রেডমি ও ভিভোর আইকিউ সাব-ব্র্যান্ডের মতো অপোর রেনো হবে আলাদা একটি প্রতিষ্ঠান। এর ডিভাইস ব্যবসা কার্যক্রমও পরিচালিত হবে পৃথকভাবে।
    চীনা ডিভাইস ব্র্যান্ডগুলো কেন সাব-ব্র্যান্ডের দিকে ঝুঁকছে? বিভিন্ন ব্র্যান্ড তাদের সাব-ব্র্যান্ডের আওতায় নির্দিষ্ট প্রাইস রেঞ্জের স্মার্টফোন উন্মোচন করছে। এর ফলে নির্দিষ্ট কোনো অঞ্চলের টার্গেট গ্রাহকের কাছে সহজে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে। যে কারণে প্রথম সারির সবগুলো চীনা ব্র্যান্ড এক বা একাধিক সাব-ব্র্যান্ড চালু করেছে।
    অপোর পক্ষ থেকে সোস্যাল মিডিয়ায় রেনোর লোগো শেয়ার করা হয়েছে। যেখান থেকে ধারণা করা হচ্ছে, রেনো সম্পূর্ণ তরুণ প্রজন্মকেন্দ্রিক একটি ব্র্যান্ড হবে। এ সাব-ব্র্যান্ডের আওতায় আনা হ্যান্ডসেটের দাম তুলনামূলক কম হবে এবং তরুণ প্রজন্ম স্মার্টফোনে যে ধরনের ফিচার চায় সেগুলো মিলবে।
    চীনের সোস্যাল মিডিয়া সাইট ওয়েইবোতে রেনোর লোগো শেয়ার করেছেন অপোর ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্রায়ান শেন। রঙিন এ লোগোর মাধ্যমে তরুণ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদেরই ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে।
    বিবৃতিতে ব্রায়ান শেন বলেন, এপ্রিলে আমরা নতুন একটি প্রডাক্ট লাইনের সঙ্গে পরিচয় করাব, যা বৈশ্বিক বাজারে দারুণ সাড়া ফেলবে বলে আশা করছি। আগামী ১০ এপ্রিল আসতে যাওয়া রেনো সাব-ব্র্যান্ডের প্রথম হ্যান্ডসেটে ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ থাকার ইঙ্গিত মিলেছে।
    গত বছর রিয়ালমি সাব-ব্র্যান্ডের ঘোষণা দিয়েছিল অপো। এর আওতায় ভারতের বাজারে সাশ্রয়ী ডিভাইস সরবরাহের মাধ্যমে দারুণ সাড়া ফেলেছে প্রতিষ্ঠানটি। গত বছরের জুলাইয়ে রিয়ালমিকে অপো থেকে পৃথক ডিভাইস ব্যবসা বিভাগ করার ঘোষণা দেয়া হয়। বর্তমানে অপো ইন্ডিয়ার সাবেক জ্যেষ্ঠ নির্বাহী এবং প্রধান স্কাই লির নেতৃত্বে স্বতন্ত্র ডিভাইস বিভাগ হিসেবে কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে রিয়ালমির। তবে রেনোর মাধ্যমে স্থানীয় বাজারে সাড়া ফেলতে চায় অপো।
    সিনহুয়ার প্রতিবেদন অনুযায়ী, অপো এখন তাদের পরবর্তী প্রজন্মের ফ্ল্যাগশিপ ফোন উন্মোচনে কাজ করছে। স্ন্যাপড্রাগন ৮৫৫ প্রসেসরচালিত ডিভাইসটিতে ১০এক্স অপটিক্যাল জুম সুবিধা মিলবে। ডিভাইসটির প্রটোটাইপ বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে (এমডব্লিউসি-২০১৯) প্রদর্শন করা হয়েছিল। অপো ফাইন্ড জেড নামের এ ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনে ৪০৬৫ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি ব্যবহার করা হবে।
    বিশ্লেষকদের মতে, চীনা ডিভাইস ব্র্যান্ডগুলোর সাব-ব্র্যান্ড কৌশল বেছে নেয়ার কারণ হলো, নতুন মূল্য সিগমেন্টে প্রবেশ এবং বিকল্প পণ্য বিপণন চ্যানেল খোঁজা। মূল ব্র্যান্ডের চ্যালেঞ্জগুলো এড়াতে এখন সাব-ব্র্যান্ড কৌশলে জোর দেয়া হচ্ছে। সাব-ব্র্যান্ডের মাধ্যমে একই দামে বিভিন্ন ধরনের পণ্য সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। অর্থাৎ কোনো মডেলের ফোনের ক্যামেরায় জোর দেয়া হচ্ছে। আবার কোনোটির ডিভাইসের কার্যক্ষমতায় জোর দেয়া হচ্ছে। তবে উভয় মডেলের ফোনের দাম একই রাখা হচ্ছে। এর ফলে গ্রাহকরা যে যেই ধরনের ডিভাইস চান, সে রকমটাই বেছে নিতে পারছেন। বাড়তি অর্থও গুনতে হচ্ছে না।

    ভাগ