অধ্যাপক নার্গিস বেগমসহ বিএনপি নেতৃবৃন্দের ওপর পুলিশি হামলার আরো নিন্দা

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে দলের জেলা কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগমসহ বিএনপি নেতৃবৃন্দের ওপর লাঠিচার্জের ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বাংলাদেশ শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোট যশোর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ।
এক বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, অধ্যাপক নার্গিস বেগম ষাটের দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতী শিক্ষার্থী ছিলেন। যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার লোভনীয় প্রস্তাবকে প্রত্যাখ্যান করে রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। তিনি ছিলেন যশোর সরকারি সিটি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ। যশোর কলেজ, যশোর উপশহর মহিলা কলেজ, যশোর এস এম সুলতান আর্ট কলেজ, যশোর সুইড প্রতিবন্ধী স্কুলসহ অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। বর্তমানে তিনি যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। অধ্যাপক নার্গিস বেগমের নেতৃত্বে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ তার সাথে যে অসৌজন্যমূলক আচরণ এবং সাথে থাকা নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জের ঘটনা ঘটিয়েছে আমরা শিক্ষক সমাজ তাতে লজ্জিত এবং ব্যথিত। পুলিশের এমন আচারণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।
অনুরূপ বিবৃতি দিয়েছেন, শার্শা উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুজ্জামান মধু, যুগ্ম-আহ্বায়ক আবুল হাসান জহির, বেনাপোল পৌর বিএনপির সভাপতি নাজিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের ভারত, জেলা কৃষকদলের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক হাবিবুল ইসলাম কচি, সদস্য সচিব শিকদার সালাউদ্দিন, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি রবিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আমির ফয়সাল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাজিদুর রহমান সাগর, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাপ্পি, মনিরামপুর উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মোতাহারুল ইসলাম রিয়াদ,সদস্য সচিব সাইদুল ইসলাম, পৌর যুবদলের আহ্বায়ক আব্বাস উদ্দিন, সদস্য সচিব বিল্লাল হোসেন, সরকারি এম এম কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক শেখ হাসান ইমাম, ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

Lab Scan