অতীতে দুর্নীতিবাজদের ঘৃণার চোখে দেখা হতো এখন সম্মান করা হয়: দুদক চেয়ারম্যান

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল¬াহ বলেছেন, অতীতে দুর্নীতিবাজদের ঘৃণার চোখে দেখা হত, কিন্তু এখন তাদের সম্মান করা হয়। সমাজে তারা প্রতিষ্ঠিত। আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে দুদক আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ বলেন, এভাবে সামাজিকভাবে ঘুষ ও দুর্নীতিকে গ্রহণযোগ্যতা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু দুর্নীতিবাজদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়া ও সম্মান করা অপরাধ, এই বোধটি সমাজে জাগিয়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত বলতে আমরা সাধারণত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দিকে আঙুল তুলি, কিন্তু আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, প্রতিটি অনৈতিক লেনদেনের টেবিলের অন্যপ্রান্তে কেউ না কেউ থাকে। সরকারি কর্মচারীদের দুর্নীতিগ্রস্ত করতে লোভী ব্যক্তিগণ প্রলুব্ধ করে এবং ক্ষমতাশালীগণ ভীতি প্রদর্শন করে। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, সরকারি সেবা প্রদানে কেউ অবৈধ অর্থ দাবি করলে আমরা দিয়ে দিই, প্রতিবাদ করি না। কখনও কখনও যেন নিজেরাও সেই দুষ্টুচক্রে সুবিধাভোগী হয়ে উঠি।” তিনি বলেন, যাদের মন ও মননকে দখল করে রেখেছে দুর্নীতি, এমন এক শ্রেণীর অবিবেচক মানুষ অবৈধ ব্যবসা, অনৈতিক মুনাফা এবং ঘুষের টাকা সন্তানদের অস্থিমজ্জায় মিশিয়ে দিচ্ছে, যারা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম। মঈদউদ্দীন আবদুল্লাহ বলেন, বিয়ের মতো সামাজিক সম্পর্ক স্থাপনের আগে অভিভাবকদের আয় এবং গাড়ি-বাড়ি সম্পদের তথ্য বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। সন্তানকে বিশেষ শিক্ষায় এবং বিশেষ পেশায় নিয়োজিত করার জন্য এই লোভী অভিভাবকগণ দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ তাদের সন্তানদের জন্য ব্যয় করছে। এমনকি ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের হাতে লক্ষ লক্ষ টাকা দিতে কুণ্ঠাবোধ করে না। এসব কেবল দুর্নীতিই নয়, বরং নৈতিক ও সামাজিক স্খলনের নিদর্শন। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, শুধু আইন প্রয়োগ করে দুর্নীতি নির্মূলযোগ্য নয়, পরিবারের মা-বাবার স্বভাব সন্তান সৎ ও অসৎ হওয়ার পেছনে গভীর ছাপ লাগে। দুর্নীতি থেকে বাঁচতে সব শ্রেণি ও পেশার মানুষকে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি উপস্থিত না থাকলেও তার বক্তব্যের ভিডিও দেখানো হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বক্তব্য দেন। এ ছাড়া দুদক কমিশনার মো. মোজাম্মেল হক খান ও মো. জহুরুল হক এবং দুদক সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বক্তব্য দেন।

Lab Scan