হৈবতপুরে প্রতিপক্ষের রোষানলের শিকার একটি পরিবার বাড়িছাড়া

স্টাফ রিপোর্টার॥ যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুরে প্রতিপরে রোষানলে পড়ে হারুন অর রশিদের পরিবার বাড়িছাড়া হয়েছে। ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন, প্রতিপরা হামলা চালিয়ে তাদের মারপিট ও ঘরবাড়ি আসবাবপত্র ভাঙচুর করেও ্যান্ত হননি, এখন মামলা দিয়ে শায়েস্তা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। মারপিট ও ভাঙচুরের ঘটনার সুষ্ঠুু বিচার ও মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য হারুন অর রশিদ গতকাল যশোরের পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন।
নিশ্চিন্তপুর গ্রামের মৃত বাবর আলী সর্দারের ছেলে হারুন অর রশিদ আবেদনপত্রে উল্লেখ করেছেন, গত ৭ জানুয়ারি বিকেলে তার ভাইপো রবিকে মারপিট করছিলো নিশ্চিন্তপুর গ্রামের দাউদ হোসেন, জামাই আহম্মেদ কবিরসহ কয়েকজন। খবর শুনে তার ছেলে সামিউল ঘটনাসস্থলে এগিয়ে যায় বরিকে রা করার জন্য। এ সময় তাকেও মারপিট করা হয়। এরই জের ধরে দাউদ হোসেনের নেতৃত্বে প্রতিপরে দুর্বৃত্তরা হারুন অর রশিদের বাড়িতে হামলা চালিয়। এসময় দুর্বৃত্তরা তার বৃদ্ধা মা ছায়রা খাতুনকে মারপিট করাসহ ঘরবাড়ি ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। হারুন অর রশিদ জানান, তারা প্রতিপরে চেয়ে দুর্বল হওয়ায় এ ঘটনায় ভয়ে মামলা করতে সাহস পাননি। অথচ হামলাকারীরা তাদের বিরুদ্ধে উল্টো মামলা করেছে। বর্তমানে হারুন অর রশিদের পরিবার বাড়িছাড়া রয়েছে। তার পরিবারের নারী সদস্যদেরও বাড়িতে না আসার হুমকি দিয়েছে প্রতিপরে লোকজন। এ ব্যাপারে তিনি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপরে হস্তপে কামনা করেছেন। এদিকে প্রতিপরে জামাই আহম্মেদ কবির দাবি করেছেন, তার পরিবারের লোকজন ঘটনার সাথে জড়িত নয়। তাকে (কবির) জখম করার ঘটনায় গ্রামের লোকজন ুদ্ধ হয়ে হারুন অর রশিদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে। আহম্মেদ কবিরের দায়ের করা মামলাটি তদন্ত করছেন কোতয়ালি থানা পুলিশের এস আই সোবহান শরীফ। তিনি জানান, নিরপেভাবে তদন্তপূর্বক আদালতে মামলার প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

ভাগ