বেগম জিয়া দেশে ফিরে স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে অপ্রতিরোধ্য আন্দোলন গড়ে তুলবেন: দুদু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিচার বিভাগের ওপর প্রভাব খাটিয়ে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির মাধ্যমে বেগম জিয়াকে ভয় দেখিয়ে কোনো লাভ নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। তিনি বলেন, কোন ষড়যন্ত্রই বেগম জিয়ার অগ্রযাত্রাকে রুখে দিতে পারবেনা। সাহস থাকলে সরকার তাকে আটক করে দেখাক। দুদু বলেন, খালেদা জিয়া আপসহীন নেত্রী কোন অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি আর করবেননা। অচিরেই তিনি দেশে ফিরে এই অবৈধ স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে অপ্রতিরোধ্য আন্দোলন গড়ে তুলবেন।
শামসুজ্জামান দুদু গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রেসকাব যশোর মিলনায়তনে জেলা বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির আলোচনায় এ কথা বলেন। বিএনপির প্রয়াত ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম আফসার আহমেদ সিদ্দিকীর ১৬ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে যশোর জেলা বিএনপি এ সভার আয়োজন করে। সভায় জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল হুদার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক অমলেন্দু দাস অপু।
প্রধান অতিথির আলোচনায় শামসুজ্জামান দুদু বলেন, মরহুম আফসার আহমেদ সিদ্দিকী ছিলেন সত্যিকারের একজন দেশপ্রেমিক রাজনীতিক। তিনি ভাষার জন্য লড়াই করেছিলেন। বিএনপির প্রতিটি দুর্দিনে সংগ্রাম করেছিলেন। তিনি বলেন, যশোরের দুজন কৃতি সন্তানের একজন হলেন প্রয়াত আফসার আহমেদ সিদ্দিকী এবং অপরজন বর্তমান বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বর্ষিয়ান রাজনীতিক তরিকুল ইসলাম। মরহুম আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর এই দুই বিশ্বস্ত সহচর দেশ ও জাতির ক্রান্তিকালে লড়াই করে এসেছেন। জাতির এই দুঃসময়ে আফসার আহমেদের মতো দেশপ্রেমিক নেতার বড় প্রয়োজন। তিনি বলেন, দেশে এখন অঘোষিত বাকশাল কায়েম করা হয়েছে। বিচার বিভাগের কোন স্বাধীনতা নেই। সরকারের বিরুদ্ধে গেলেই শোষন নিপীড়ন চলছে। তিনি আফসার আহেমদ সিদ্দিকীর উদাহারণ টেনে বলেন, যখন প্রথম আফসার আহমেদ সিদ্দিকী বিএনপি করতে আসেন সেসময় একই রকম অবস্থা ছিল দেশে। বিএনপিকে সেসময় দমিয়ে রাখতে পারেনি। এখনও পারবে না।
তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, মিথ্যা সাজানো মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। বেগম জিয়া আপোসহীন নেত্রী। তিনি বিদেশ থেকে ফিরবেন। সাহস থাকলে তাকে আটক করে দেখান। তিনি সকল অন্যায় অত্যাচারের জবাব দেয়ার জন্য নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহবান জানান।
দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটের কথা উল্লেখ করে দুদু বলেন, দেশ স্বাধীনের পর দেশের সার্বিক পরিস্থিতি এতো উদ্বেগজনক পর্যায়ে আর কখনও পৌঁছেনি। দেশের একজন প্রধান বিচারপতিকে সরকার চুল ধরে টেনেহিঁচড়ে দেশ থেকে বের করে দিচ্ছে। মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে সাদা কাগজে সই করে নিচ্ছে। ফলে দেশ কোথায় যাচ্ছে তা নিশ্চিত করে বলা কঠিন। তিনি বলেন, দেশের মানুষ আজ শেখ হাসিনাকে নিয়ে চিন্তায় পড়েছে। শেখ হাসিনা তার পিতার মোসায়েবদের দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। তিনি যে আগুন নিয়ে খেলা করছেন ওই আগুনেই তাকে পুড়তে হবে। শামসুজ্জামান দুদু নেতাকর্মীদের সকল ভেদাভেদ ভুলে নিজেদের মধ্যে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে অপ্রতিরোধ্য আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আহবান জানান।
আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার টিএস আইয়ূব, আবুল হোসেন আজাদ, জেলা বিএনপির সহসভাপতি গোলাম রেজা দুলু, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, নগর বিএনপির সভাপতি মারুফুল ইসলাম মারুফ, যশোর সদর উপজেলার বিএনপির সভাপতি মো. নুরুন্নবী প্রমুখ।
এসময় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সহসভাপতি প্রফেসর গোলাম মোস্তফা, যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ মিজানুর রহমান খাঁন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদিকা অধ্যাপক ফিরোজা বুলবুল কলি, শার্শা থানা বিএনপির সভাপতি আলহাজ খাইরুজ্জামান মধু, পৌর বিএনপির সভাপতি নাজিম উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন আহমেদ, যশোর নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুনীর আহম্মদ সিদ্দিকী বাচ্চু, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক কাজী আজম, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন, বাঘারপাড়া থানা বিএনপি নেতা শামসুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান, অভয়নগর থানা বিএনপি নেতা মশিয়ার রহমান মশি, শাহ জোবায়ের হোসেন, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি এস এম মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন, কৃষকদলের সভাপতি আলহাজ হাসান সালেহ, সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু মুরাদ, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড, আমিনুর রহমান, জেলা যুবদলের সভাপতি এহসানুল হক মুন্না, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম তমাল আহমেদ, নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান ধনি, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান মাসুম, আনসারুল হক রানা, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহসভাপতি রবিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা আমীর ফয়সাল, নগর ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক হোসেন প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন, জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক আলহাজ আনিছুর রহমান মুকুল।

ভাগ