দাদা রিপন হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল বরখাস্ত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরে ইমেজ সংকটে পড়েছে আওয়ামী লীগ। একটি হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি হওয়ায় সদর উপজেলার ইছালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আফজাল হোসেনের পর এবার আরেকটি হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করলো স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। ইছালী ইউপি চেয়ারম্যান আফজাল হোসেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। ইছালী ইউপি চেয়ারম্যান আফজাল হোসেন একই ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মোশাররফ হোসেন হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি। অবশ্য পরে তিনি উচ্চ আদালতের আশ্রয় নেওয়ায় তার সাময়িক বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। অপরদিকে আরবপুরের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামকে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক রিপন হোসেন ওরফে দাদা রিপন হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি হওয়ার কারণে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে শাহারুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের বিষয়ে বলা হয়েছে, ‘যেহেতু যশোর কোতয়ালি মডেল থানার মামলা নং-৫৪, ১৫.৩.২০১০ এর ৩৪১/৩০২/৩৪ ধারার চার্জশিটভুক্ত আসামি এবং মামলাটি গত ০৫.০২.২০১৪ তারিখে চার্জশিট আদালতে গৃহীত হয়েছে। এ কারণে ফৌজদারি (হত্যা) মামলার প্রধান আসামি হওয়ায় যশোর সদর উপজেলার আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক অনুরোধ জানান। ফলে আদালতে উল্লিখিত ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিচারাধীন মামলা (অভিযোগপত্র) চার্জশিট গৃহীত হওয়ায় তার কর্তৃক ক্ষমতা প্রয়োগ প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণে সমীচিন নয় মর্মে সরকার মনে করে। এজন্য সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কর্তৃক সংঘটিত অপরাধমূলক কার্যক্রম পরিষদসহ জনস্বার্থের পরিপন্থি বিধায় স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন-২০০৯ এর ধারা ৩৪ উপধারা (১) অনুযায়ী উল্লিখিত ইউপি চেয়ারম্যানকে স্বীয় পদ থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হলো।’ গত বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রজ্ঞাপনটি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে একটি পত্রের মাধ্যমে জানানো হয়। যার স্মারক নং-০৫.৪৪.৪১০০.১৩.০০৭.০০১.১৮.১৪(৩), তারিখ ০৪.০১.২০১৮। উল্লেখ্য, শাহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক দাদা রিপন হত্যাকাণ্ডের পর মামলা দায়ের এবং ওই চার্জশিট দাখিল হয় আদালতে। এদিকে হত্যা মামলায় আফজাল হোসেনের পর শাহারুল ইসলামের সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি প্রচার হওয়ায় ইমেজ সংকটে পড়েছে আওয়ামী লীগ। কারণ, এই দুজনের মধ্যে একজন জেলা আওয়ামী লীগের এবং অপরজন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা। আবার এ দুজনই জেলা আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান গ্রুপের অনুসারী। বর্তমানে শাহারুল ইসলামের সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি ব্যাপক আলোচিত হচ্ছে।

ভাগ