চৌগাছায় মন্দির কমিটি স্থগিত করল মেয়াদোত্তীর্ণ পরিষদের সভাপতি

এম.এ.রহিম চৌগাছা (যশোর) ॥ যশোরের চৌগাছার নানা অভিযোগে অভিযুক্ত ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি নিমাই সরকার ও সম্পাদক বলাই চন্দ্র পাল এবার এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে নবগঠিত একটি মন্দির কমিটি স্থগিত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১৪ অক্টোবর এই কমিটি স্থগিতের চিঠিতে স্বাক্ষর করলেও সেটির অনুলিপি ১৯ অক্টোবর চৌগাছা প্রেস কাবে দেয়া হয়। তবে এই সিদ্ধান্ত নিতে কোন সভা করা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মন্দির কমিটির সদস্য সচিব অশোক কুমার হালদারসহ সকল নেতৃবৃন্দ।
জ্যেষ্ঠ নেতাদের বক্তব্য ও দালিলিকভাবে জানা গেছে, চৌগাছা উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের কমিটি মেয়াদ শেষ করে অতিরিক্ত ৬ বছর পার করেও বহাল তবিয়তে রয়েছেন সভাপতি সম্পাদক। ইতোমধ্যে বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি গঠন করতে কেন্দ্রের নির্দেশনা থাকলেও মানতে রাজি নন তারা। অন্যদিকে কমিটির সভাপতি ও সম্পাদকের বিরুদ্ধে অনাস্থা দিয়েছেন ৫১ সদস্যের কমিটির ৪১ জন। অনাস্থা স্বত্ত্বেও মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি ও সম্পাদক এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে স্থগিত করেছেন গত ৫ অক্টোবর গঠিত শহরের শ্রীশ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরের আহ্বায়ক কমিটি। এ বিষয়ে পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর চন্দ্র মজুমদার চৌগাছা প্রেস কাবে এসে বলেন, মন্দিরের কমিটি করবেন মহল্লার সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। তারা যেটি করেছেন সেটি এখতিয়ার বহির্ভূত। এর কোন ভিত্তি নেই। মন্দির কমিটির সদস্য নিতাই সরকার জানান, সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে বিভেদ তৈরি করতে সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যে প্রণোদিতভাবেই তারা এমন কাজ করেছেন । পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘পূজা উদযাপন পরিষদের গঠনতন্ত্রের কোথাও লিখিত নেই যে, এই কমিটিই মন্দির কমিটি করে দিবেন। পূজা উদযাপন পরিষদ একটি বৃহৎ সংগঠন। এটি একটি সর্বজনীন প্রতিষ্ঠান। উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি নিমাই সরকার ও সম্পাদক বলাই চন্দ্র পাল ক্ষমতা একহাতে রাখতেই এই গর্হিত কাজ করেছেন।’ তবে মন্দিরের কমিটি স্থগিতের সঠিক ব্যাখ্যা দিতে পারেননি উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি নিমাই সরকার।

ভাগ