গোধরাকাণ্ডে ১১ জনের ফাঁসির সাজা কমে যাবজ্জীবন

গোধরাকাণ্ডে ১১ জনের ফাঁসির সাজা কমে যাবজ্জীবন, রায় গুজরাট হাইকোর্টের। এদের ফাঁসির সাজাকে লঘু করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হলো এ দিন। ঘটনায় মৃতদের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকারকে। সেই সঙ্গে বাকি ২০ জন অপরাধীর যাবজ্জীবনের সাজা জারি রাখল আদালত।
সোমবার এই মামলার শুনানি ছিল গুজরাট হাইকোর্টে। বিচারপতি এ এস দাভে ও জি আর উধওয়ানির বেঞ্চ এ দিন এই রায় দেন। ছয় সপ্তাহের মধ্যে ক্ষতিপূরণ দিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিচারপতি দাভে জানিয়েছেন, পুরো প্রমাণ খতিয়ে দেখেছি। মূলত যাত্রী, আহত ও রেলকর্মীদের বয়ানের ওপর ভিত্তি করা হয়েছে। খতিয়ে দেখা হয়েছে ফরেনসিক রিপোর্ট।
২০০২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারির ঘটনা।
সবরমতী এক্সপ্রেসের S-6 কোচে ছিলেন ৫৯ জন যাত্রী। যাদের বেশির ভাগই ছিলেন করসেবক। অযোধ্যা ফিরছিলেন এরা। সেই কোচ জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। ২০১১ সালে এই ঘটনার তদন্তে স্পেশাল সিট গঠন হয়। ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয় ৩১ জন। এদের মধ্যে ১১ জনকে ফাঁসির নির্দেশ দেওয়া হয়। ২০ জনকে যাবজ্জীবনের নির্দেশ দেওয়া হয়।
৩১ জনের বিরুদ্ধে হত্যা, হত্যাচেষ্টা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মামলা দায়ের করা হয়। মূল অভিযুক্তরা হলেন মাওলানা উমরজী, মহম্মদ হুসেন কালোটা, মহম্মদ আনসারি ও নানুমিয়া চৌধুরি।

ভাগ