খামেনির পদত্যাগ চাইছে বিক্ষোভকারীরা

ইসলামিক বিপ্লবের পর ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি পরোক্ষভাবে দেশটির রাজনীতির নিয়ন্ত্রক। তার বিরুদ্ধে জনগণের আনুগত্যও সীমাহীন। তবে এবার সেই খামেনির পতন চেয়েই স্লোগান দিতে শুরু করেছে দুর্নীতি ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির ‘প্রতিবাদে’ রাস্তায় নামা বিক্ষোভকারীরা।
বিবিসি জানিয়েছে, রোববার ইরানের খোরামাবাদ, যানজান ও আহভাজ শহরে মিছিল থেকে দেশের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির পদত্যাগের দাবিতে স্লোগান দেওয়া হয়েছে। আবহার শহরে বিক্ষোভকারীরা খামেনির ছবি সম্বলিত সুবিশাল ব্যানারে অগ্নিসংযোগ করেছে।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এর আগের দিন অর্থাৎ শনিবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা বিক্ষোভের একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, বিক্ষোভকারীরা চিৎকার করে বলছেন, ‘মোল্লাদের কিছুটা লজ্জা আছে, একাকী দেশ ছেড়ে যাও।’ এছাড়া বিক্ষোভকারীরা ‘রেজা শাহ, তোমার আত্মা শান্তি পাক’ বলেও স্লোগান দেয়। ১৯৭৯ সালে আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনির নেতৃত্বে ইসলামিক বিপ্লবের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিলেন তৎকালীন শাসক রেজা শাহ পাহলভি। রেজা শাহের পক্ষে এ ধরণের স্লোগান প্রবল জনঅসন্তোষ হিসেবে দেখা যাচ্ছে।
দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও দুর্নীতির অভিযোগে দ্বিতীয় জনবহুল শহর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় মাশহাদে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ শুরু করেছিল বিক্ষুব্ধরা। পরে তা রাজধানী তেহরানসহ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। রোববার অবশ্য দেশটির কোথাও বিক্ষোভকারীদের রাস্তায় নামতে দেখা যায়নি।
এদিকে, সাময়িক সময়ের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইরানি কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি বার্তা বিনিময় অ্যাপস টেলিগ্রাম ও ছবি শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রামের ব্যবহারও নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা ইরিব।

ভাগ