অজ্ঞান পার্টি: যশোরে ৭দিনে সাতজন আক্রান্ত ১১ লক্ষাধিক টাকা ও মালামাল খোয়া

বিএম আসাদ ॥ ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে যশোরাঞ্চলে তৎপর হয়ে উঠেছে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা। এদের কবলে পড়ে গত এক সপ্তাহে ব্যবসায়ী, ইজিবাইক চালকসহ ৭ জন, ১১ লাধিক টাকা ও মালামাল খুঁইয়েছেন। এতো টাকা ও মালামাল খোয়া গেলেও পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি।
সূত্র জানিয়েছেন, পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে অজ্ঞান পার্টির সদস্যদের তৎপরতা মারাত্মক আকার বেড়ে গেছে দুর্বৃত্তদের দৌরাত্বে। ব্যবসায়ী, ইজিবাইক চালকসহ সাধারণ মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। বাসে, বাজারে এমনকি পথেঘাটে কোথাও নিরাপত্তা নেই মানষের।  জানা গেছে, গত ২০ আগস্ট হতে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত এক সপ্তাহে যশোরে ৭ জন অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়েন। এতে তাদের ১১ লাধিক টাকা, ইজিবাইক ও মালামাল খোয়া গেছে। এছাড়াও বিভিন্ন রুটে অনেকেই অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ে টাকা, মোবাইল ফোনসহ অন্যান্য মালামাল হারিয়েছেন। অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ে এক সপ্তাহে ৭ জন যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন হচ্ছেন- আনোয়ার হোসেন (৬০), বাড়ি যশোর উপশহর বি-ব্লক খালপাড় এলাকায়। তিনি একজন ইজিবাইকচালক। অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ে ইজিবাইকটি খোয়া যাওয়ার কারণে তার আয়ের উৎস বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে অসহায় জীবন-যাপন করছেন। ২৪ আগস্ট শিহাব উদ্দিন (৪৫) নামে ঢাকা লেকচার পাবলিকেশনস-এর কর্মচারী বাসযোগে যশোর আসছিলেন। বাসের ভেতর অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা তাকে কৌশলে অজ্ঞান করে ৭০ হাজার টাকা নিয়ে সটকে পড়ে। মাওলানা শিহাব উদ্দিনের বাড়ি বরগুনার আমতলী উপজেলার সোনাউঠা গ্রামে। ২০ আগস্ট জামাল হোসেন (৩০) , বাধন (৩০) ও আব্দুস সালাম (৩৫) নামে চার গরু ব্যবসায়ী বরিশাল থেকে বাসযোগে যশোরে গরু কিনতে আসছিলেন। দুর্বৃত্তরা বাসের মধ্যে ওই চার ব্যবসায়ীকে অজ্ঞান করে তাদের কাছে থাকা প্রায় ১২ লাখ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তদের কবলে শুধু ৭ জন নয়, যশোরের সাথে সংযুক্ত ১৮টি রুটের বাসে, হাটে-বাজারে এমনকি পথেঘাটে কেউ নিরাপদে টাকা, মালামাল নিয়ে চলাচল করতে পারছে না।
আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে দুর্বৃত্তরা তৎপর হয়ে উঠেছে। গরুর হাটেও দুবর্ৃৃত্তরা তৎপর রয়েছে। এ ধরণের গটনা যশোরসহ আশপাশে ঘটলেও আইন-শৃঙ্খলা রাকারী বাহিনী যথাযথ পদপে নিতে পারছে না। তারা আটক করতে পারেনি অজ্ঞান পার্টির কোন সদস্যকে। ফলে তাদের তৎপরতা বেড়ে গেছে। অপ্রতিরোধ হয়ে উঠেছে দৃর্বুত্তরা।

ভাগ